বন্ধু টুশির কাছে প্রথম শোনা সিএফএসের কথা। চলচ্চিত্রের প্রতি আগ্রহ ঐশীর পুরোনো। তবে তার বয়সী কেউ যে নিজ হাতে চলচ্চিত্র তৈরি করতে পারে, সে সম্পর্কে ধারণা ছিল না তার। পরে মনে ভাবনা, “এবার ফেস্টে আমার ফিল্ম যাওয়া চাই!” যেই ভাবনা, সেই কাজ!

সপ্তম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবে জমা পড়লো তার প্রথম ফিল্ম “বন্ধুতা”। সহজ-সরল বন্ধুত্বের ছোটবড় দিক তুলে ধরা এই ফিল্মটি দর্শকপ্রিয়তা পায়নি তেমন। তাই বলে কিন্তু ঐশী হতাশ হয়নি একটুও।

সপ্তম আন্ত্ররজাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবে সে আসে নতুন চমক নিয়ে। তার নির্মিত চলচ্চিত্র, ‘Long Way To Go’ জিতে নেয় দ্বিতীয় সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার, যা 11th Meena Media Awards- under-18 ক্যাটাগরিতে প্রথম পুরস্কার এবং Anim!arte Animation Film Festival, Brazil এ 3rd Best Film (Mini) এবং 3rd Best Film in Asia (Mini) এর পুরস্কার পায়।

ঐশীর এই চমৎকার সৃষ্টির গল্প ছিল সমসাময়িক এবং অনুপ্রেরণাদায়ক। অল্প সময়ের মধ্যে বেশ চমৎকার করে সে তুলে সমাজের ভালোমন্দ কিছু উল্লেখযোগ্য দিক। নবম উৎসবেও সবাইকে তকমা লাগাতে ভুলেনি সে। রঙিন মনের ঐশীর তৈরি চলচ্চিত্র ‘Uncoloured Mind’ পায় পঞ্চম সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার।

সে স্বপ্ন দেখে, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে আরো কিছু চমৎকার তৈরি করবে সে। “মেয়েরা পর্দার আড়ালে থেকে কাজ করতে পারেনা” ধরণের বদ্ধমূল ধারণা থেকে বের হয়ে নিজেকে একজন সফল নির্মাতা হিসেবে কাজ করতেই তার স্বপ্নপূরণের পথে এগিয়ে চলা!

সৈয়দা আশফাহ্‌ তোয়াহা দ্যূতি

স্বেচ্ছাসেবক, চিল্ড্রেন্স ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশ